মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

খেলাধুলা ও বিনোদন

এই প্রসঙ্গে প্রথমে গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী বলি খেলা উলেস্নখযোগ্য। নানিয়ারচর উপজেলার ঘিলাছড়ি ইউনিয়নে হাজাছড়ি পুরান আদাম গ্রামে (পরবর্তীতে একই ইউনিয়নের জুড়াছড়ি গ্রামে)চিন্নমুণি চাকমানামে এক বড় বলির নাম এখনো শোনা যায়। পারিবারিক নাম বৈদ্যবাপ । তার পিতার নাম নাক্রুম চাকমা, মাতা- ধাম্বী চাকমা। ‘চিন্নমুনি বলি’ নামে তার পরিচিতি সর্বত্র। তার শরীরে আচার্য্য ধরণের বল ছিল বলে কথিত আছে। সেই সময়ে  তিনি একা ১৬ মণ ধান, বড় বড় বাঁশ ৫০০, ৮টি ৯ হাত লম্বা বড় বড় গাছের খুঁটি অনায়াসেই বাহুবলে উত্তোলন ও কাধে বহন করতেন। পুরান গ্রাম থেকে জুরাছড়ি বসতি স্থাপনকালে কোন দা-কুড়াল ছাড়া হাত দিয়ে গাছ-গাছড়া উপড়ে ফেলে জমি তৈরী করেছেন বলে জনশ্রতি রয়েছে।তার পরবর্তীর্ কৃষ্ণমাছড়া গ্রামের মিত্তুঙ্গ্যা বলি, ভুইয়াদাম নাঙ্গেল পাড়ার নাক্সাধন বলি, খামারপাড়ার আগোচ্যাচান বলি এবং করল্যাছড়ি মধ্যআদাম গ্রামেরনবদ্বীপ বলির নাম উলেস্নযোগ্য।ঃ


Share with :

Facebook Twitter